01714584920

01714584920

ALL DEPARTMENTS


Category: BOOKS | ইসলামি বই

নারী জন্মের আনন্দ

Price: BDT 88.00


BUY NOW

---

 

মুফতী রূহুল আমীন যশোরী রহ.এর নারী জন্মের আনন্দ অরিজিনাল বইটি সংগ্রহ করুন বই বিক্রয় ডট কম থেকে।সর্বোচ্চ ছাড়ে বই কিনুন এবং বই হাতে পেয়ে মুল্য পরিশোধ করুন।

 

  •  Price:TK.88
  • Our price:TK.140 (37%OFF)
  • Author: মুফতী রূহুল আমীন যশোরী
  • Category:নারী সম্পর্কীয়
  • Number of pages:119
  • Edition: 6th Printed,2012
  • Publisher:আশরাফী বুক ডিপো
  • Country : Bangladesh

 

 

প্রারম্ভিক কথা

نحمده ونصلی علی رسوله الكريم

ইসলামপূর্ব জাহিলিয়্যাতের যুগ ছিল নারী জাতির জন্য এক কলংকিত, অভিশপ্ত যুগ। নারী জন্মকে মনে করা হত অভিশাপ। কন্যা সন্তান জন্ম গ্রহণ করলে পিতা লজ্জায়, ঘৃণায়, মনের দুঃখে কন্যাকে জীবন্ত কবর দিয়ে অথবা গলাটিপে কিংবা সাপ, বিচ্ছ ভরা গভীর কূপে নিক্ষেপ করে হত্যা করত। স্বামীর সোহাগ, বাপের আদর, মায়ের স্নেহ, ভাইয়ের মায়া যে কি জিনিষ, কেমন আনন্দদায়ক, সে সম্পর্কে দাসত্বের শৃঙ্খলে আবদ্ধ অবলা অনেক নারীরই জানা ছিল না। সে বর্বর যুগে একটি পশুরও মূল্য ছিল, কিন্তু একজন নারীর কোন মান-সম্মান, মর্যাদা, ইজ্জত, অধিকার বলতে কিছুই ছিল না

সে অজ্ঞভার যুগে নারীকে স্বামী, পিতা, ভাই বা ছেলের সম্পত্তি থেকে কোন অংশ দেয়া হত না। বিবাহের সময় কোন দেন-মহর দেয়া হত না। যে যতটা ইচ্ছা বিবাহ করতে পারত, ছাড়তে পারত। নারী। জাতি ছিল পাষন্ড পুরুষদের ভোগের সামগ্রী। বর্তমানে তথাকথিত অধুনা বিশ্বে নারী উন্নয়ন নারী স্বাধীনতা এবং শিক্ষা-সংস্কৃতির নামে স্কুল-কলেজে, খেলাধুলা শরীর চর্চার নামে মাঠে-ময়দানে, সাঁতার প্রতিযোগিতার নামে সুইমিংপুলে, চাকরী-বাকরী আর্থিক স্বনির্ভরতার নামে অফিস-আদালতে, গার্মেন্টসে, পথে-ঘাটে এবং যাত্রা থিয়েটার, সিনেমা, মডেলিং সুন্দরী প্রতিযোগিতার নামে যা কিছু করা হচ্ছে, তা। নারী স্বাধীনতা নয়, বরং তা যৌন স্বাধীনতার মাধ্যমে নারী লোভী পুরুষ কর্তৃক নারীকে ভোগের সামগ্রীতে পরিণত করার গভীর চক্রান্ত বৈ নয়

ন্যায়, শান্তি মুক্তির ধর্ম শাশ্বত ইসলাম সম্মানিত মাতৃজাতিকে কতটুকু মান-মর্যাদা, ইজ্জত, ফযীলত অধিকার দিয়েছে এবং নারী হয়ে জন্ম নেয়া নারীর জন্য অভিশাপ না আনন্দের বিষয়, তার প্রমাণপঞ্জী স্বরূপনারী জন্মের আনন্দনামক ক্ষুদ্র বইটি রচনা করলাম। বইটিতে নারীর সম্মান, মর্যাদা, ফযীলত, অধিকার করণীয় বিষয় সম্বলিত কয়েকটি অধ্যায় রাখা হয়েছে প্রমাণ স্বরুপ প্রত্যেকটি অধ্যায়ের সাথে সম্পৃক্ত আয়াত হাদীস পেশ করার চেষ্টা করেছি মাত্র ৪২ আয়াত এবং ১৫০ টি হাদীস উপস্থাপন করেছি

বইটির নাম করণ করেছেন জামি রাহমানিয়ার প্রধান মুফতী ভাইস প্রিন্সিপাল হারদুয়ী হযরতের বিশিষ্ট খলীফা মাওলানা মুফতী মনসূরুল হক সাহেব। এছাড়া বইটি রচনায় যারা উৎসাহ দিয়ে, শ্রম  সময় দিয়ে এবং সম্পাদনা করে সহযোগিতা করেছেন, তাদের মধ্যে

উল্লেখযোগ্য হলেন বিশিষ্ট মুহাদ্দিস বন্ধুবর মুফতী ইবরাহীম হাসান সাহেব এবং বহুল প্রচারিত সত্য-ন্যায়ের প্রতীক মাসিক ব্রাহমানী পয়গাম

আদর্শ নারীর সুযোগ্য সম্পাদক বন্ধুবর মুফতী আবুল হাসান শামসাবাদী সাহেব

বইটি পাঠ করে যদি কারা সামান্যতম উপকার সাধিত হয়, তাহলে আমার ক্ষুদ্র প্রয়াসকে সার্থক মনে করব। অসাবধানতা বশতঃ মুদ্রণগত কোন প্রকার ক্রটি দৃষ্টিগোচর হলে, অবগত করানোর জন্য  সবিনয় অনুরোধ করছি। পরবর্তী সংস্করণে ইনশাআল্লাহ সংশোধন করা হবে। আল্লাহ তাআলা বইটিকে সকলের হিদায়াতের জন্য কবুল করুন, এটাই ঐকান্তিক কামনা। আমীন

বিনীত

২২-০৩-১৪১১হিজরী ১৬-০৭-১৯৯৮ ঈসায়ী

রহুল আমীন যশোরী। জামি রাহমানিয়া আরাবিয়া

মোহাম্মদপুর, ঢাকা

 

এ গন্থটি পাঠ করে আপনি যা জানতে পারবেন

ইসলাম পূর্ব জাহিলিয়াতের যুগে আরবসহ গােটা ও বিশে ধর্মে-কর্মে, আচার-অনুষ্ঠানে, বিচার কার্যে, আইনআদালতে, পারিবারিক, সামাজিক, অর্থনৈতিক ও রাষ্ট্রীয়ভাবে নারী জাতির কোন কথা বা কাজের কোন মূল্য। বা গ্রহণযােগ্যতাই ছিল না। বরং নারী সত্নাটাকে তারা ও পরিবারের জন্য, সমাজের জন্য, বংশের জন্য কলঙ্ক, অপমান ও অভিশাপ মনে করত। সমাজের মােড়লরা, ধনকুবেরা, জমিদাররা নারীদেরকে উপপত্নী, দাসী ও গণিকা ইত্যাদি হিসেবে অযাচিত কাজে নিয়ােজিত থাকতে বাধ্য করত। কিন্তু বিশ্বের বুকে নারী মুক্তির অগ্রদূতরূপে, মানবতার মুক্তির দিশারীরূপে মহানবী (সাঃ) আবির্ভূত হয়ে নারী জাতিকে দিলেন তার লুপ্ত মান-সম্মান, মর্যাদা, অধিকার ও ফযীলত। | নামাজ, রােযা, হজ্ব, যাকাত, যিকির, ফিকির,। তিলাওয়াত এমন কি জিহাদের ময়দানেও নারীকে পুরুষদের

সমপরিমান সওয়াব দেয়া হয়েছে। শুধুতা-ই নয়, বরং  রান্না-বান্না, ঘর সাজানাে, ঘর গুছানাে, সন্তান গর্ভে ধারণ, সন্তান জন্মদান, অতঃপর স্তন্যদান, সন্তান লালন-পালন, সন্তানের জন্য রাত্রি জাগরণ, স্বামীর অনুপস্থিতিতে স্বীয় সতীত্ব ও স্বামীর সম্পদ সংরক্ষণ সহ প্রতিটি কাজের বিনিময়ে নারীকে পুরুষের তুলনায় অধিক ছাওয়াবের

অধিকারীণী করা হয়েছে। যে নারীকে বলা হত অনর্থের মূল, তাকে বলা হল সৌভাগ্যের ফুল।

 

 নারী জাতির সম্মান, মর্যাদা, অধিকার ও ফযীলত সম্পর্কিত গুরুত্বপূর্ণ ৪২টি আয়াত ও ১৫০টি হাদীসের সমন্বয়-ই “নারী জন্মের আনন্দ “।